Bengali

কৃষ্ণকুমারী নাটকের পাশ্চাত্য প্রভাব আলোচনা করো

কৃষ্ণকুমারী নাটকের পাশ্চাত্য প্রভাব আলোচনা করো, কৃষ্ণকুমারী নাটকে পাশ্চাত্য প্রভাব,
কৃষ্ণকুমারী নাটক,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের বিষয়বস্তু,
কৃষ্ণকুমারী নাটক pdf,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের কাহিনী সংক্ষেপ,
কৃষ্ণকুমারী কোন ধরনের নাটক,
কৃষ্ণকুমারী পিডিএফ,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের প্রশ্নউত্তর,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের মূলভাব,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের সারমর্ম,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের সারাংশ,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের ভূমিকা,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের চরিত্র বিশ্লেষণ,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের প্রশ্নউত্তর,
কৃষ্ণকুমারী টিকা,
মাইকেল মধুসূদন  কৃষ্ণকুমারী নাটক,
কৃষ্ণকুমারী নাটকের পাশ্চাত্য প্রভাব আলোচনা করো,
মেঘনাদ বধ,
মধুসূদনের মৌলিক নাট্য চিন্তা,

কৃষ্ণকুমারী ও মেঘনাদ বধ সমসাময়িক রচনা। একই অসহায় ব্যক্তিত্বের নিয়তি লাঞ্ছিত দুটি রূপকে কবি দুভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। মেঘনাদ বধ কাব্য রচনা প্রসঙ্গে মধুসূদন লিখেছিলেন ‘I have constructed the poem on the most rigid principles and even a french critic would not find fault with me.’ মধুসূদন মেঘনাদ বধ কাব্যকে Three-fourth Greek বলেছেন। কৃষ্ণকুমারী নাটক প্রসঙ্গে গ্রীক সাহিত্য সম্বন্ধে মধুসূদন নীরব।

১৮৪২ খ্রীষ্টাব্দে ২৭শে নভেম্বর গৌড়দাস বসাককে একটি চিঠিতে মধুসূদন লিখেছিলেন ‘Please send me that volume of your Shakespeare which contain in Othello and Hamlet.’ রাজনারায়ণ বসুকেও একটি চিঠিতে বারবার সেক্সপীয়রের নাট্যচরিত্রের চেয়ে তার চরিত্রগুলি কেন পৃথক সে কথাও তিনি বারবার উল্লেখ করেছেন। একটি পত্রে মধুসূদন লিখেছেন ‘I wish you had not thought of Shakespeare so much as you appear to have done when you set down to persue poor Krissen Kumari.’ মধুসূদন সেক্সপীয়রের নাটকের Strun realities of life, lofty passion and Heroism of sentiment কে বাংলা নাটকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

Read more কৃষ্ণকুমারী চরিত্র অথবা কৃষ্ণকুমারী চরিত্রের ট্র্যাজেডি আলোচনা কর।

গ্রীক নাটকের কোন প্রসঙ্গ কৃষ্ণকুমারী নাটকের আলোচনায় উত্থাপিত না হলেও আমরা জানি যে মধুসূদন গ্রীক নাটক সম্বন্ধে সচেতন ছিলেন, ‘পদ্মাবতী’ নাটকের পরিচয় দিতে গিয়ে মধুসূদন বন্ধু রাজনারায়ণ বসুকে একটি পত্রে লিখেছিলেন- ‘I am asure I need not tell you that in the first act you have the Greek story of the Golden appeal Indianised.’ গ্রীক ও সেক্সপীয়ার দুটি নাট্যাদর্শেরই প্রভাব পড়েছে।

কৃষ্ণকুমারী নাটকের পাশ্চাত্য প্রভাব

কৃষ্ণকুমারী নাটকটিতে পাশ্চাত্য নাট্যাদর্শের প্রভাব খুঁজতে গেলে মূলত চারটি ধারায় আমাদের তা লক্ষ্য করতে হবে। চরিত্র সংলাপ, দৃশ্য ও ঘটনা। বস্তুত এই চারটি ক্ষেত্রেই আমরা পাশ্চাত্য নাটকের প্রভাব লক্ষ্য করে থাকি। ধনদাস চরিত্র প্রসঙ্গে মধুসূদন একটি পত্রে লিখেছিলেন ‘As for Dhanadas I never dreamt of making him the counter part of lago’ কেউ কেউ অনুমান করেছেন যে সেক্সপীয়ারের King Henry fourth নাটকে ফলস্টাপ চরিত্রের প্রভাব পড়েছে ধনদাস চরিত্রটির উপর।

Read also কৃষ্ণকুমারী নাটকে মোট কয়টি গান আছে ? গানগুলি উল্লেখ করে নাট্যকাহিনির অগ্রগতিতে গানগুলির গুরুত্ব উল্লেখ কর।

শ্রী সনৎ কুমার মিত্র লিখেছেন – ‘ধনদাসের ধনলোভ, অসৎ পথ ও চাতুরীর আশ্রয় বহন, তার বিকারহীন, ভণ্ডামী নিজের কুকৃর্তিকে ঢাকা দেওয়ার জন্যে হাস্যকর সাফাই গাওয়া, বারে বারে ফলস্টাপকে মনে করিয়ে দিয়েছে।’ তবে সংস্কৃত নাটকের বিদূষক চরিত্রের প্রভাব পড়েছে এই চরিত্রটির উপর। বলেন্দ্রসিংহ চরিত্র প্রসঙ্গে মধুসূদন সেক্সপীয়রের King John নাটকের বাসষ্টাট চরিত্রটির কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন্দ্র প্রসঙ্গে লিখেছেন তবে বলেন্দ্র সিংহের, সঙ্গে বাসষ্টাট চরিত্রটির মিলন থাকলে ও মিলের মধ্যে অমিল আছে। বাসষ্টাট ছিলেন ইংল্যাণ্ডের প্রবক্তা রাজা রিচার্ডের অবৈধ সন্তান। কিন্তু মধুসূদন বলেন্দ্র সিংহকে সেইভাবে অঙ্কন করেননি।

রাণা ভীমসিংহের মধ্যে আবার অনেকে সেক্সপীয়ারের কিংলিয়রের সাদৃশ্য দেখেছেন। রাণা ভীমসিংহ ছিলেন বয়সে বৃদ্ধ অশক্ত এবং শেষ জীবনে সহায় সম্বলহীন। কিন্তু দুটি চরিত্রের এই মিল বহিরঙ্গ, তাদের প্রধান মিল বা সাদৃশ্য সংলাপগত ৷

See more ‘বড়বাজার’ রচনায় ‘বিদ্যার বাজার’ ও সাহেবদের ‘এক্সপেরিমেন্টাল সায়েন্স’-এর দোকানে গিয়ে কমলাকান্ত চক্রবর্তী তাঁর অভিজ্ঞতার যে সরস বর্ণনা দিয়েছেন তা নিজের ভাষায় বিস্তৃত কর।

সংলাপ সৃষ্টিতে বাস্তবিকই মধুসূদন সেক্সপীয়ারের কাছে বহুভাবে ঋণী। কন্যা কৃষ্ণকুমারীকে হত্যার আদেশ দিয়ে ভীমিসংহ বিলাপ করেছেন ‘রজনী দেবী বুঝি এ পাথরের গ্রহীত কর্ম দেখে প্রচণ্ড ক্ষোভ ধারণ করেছেন, আর চন্দ্র ও নক্ষত্র প্রভৃতি মণিময় আবরণ পরিত্যাগ করে চামুণ্ডারূপে গর্জন করেছেন। উঃ কি ভয়ানক ব্যাপার।’ এই সংলাপ কিংলীয়রের আত্মনাদকে স্মরণ করিয়ে দেয়। ‘Blow winds and crack your cheeks rage blow you cataracts and Hurricanes spout ….’ প্রকৃতপক্ষে কিংলীয়রের নাট্যসংলাপের সঙ্গে রানা ভীম সিংহের নাট্য সংলাপগুলির অসামান্য মিল আছে।

নাটকের একটি দৃশ্যেও সেক্সপীয়ারের নাটকাবলীর প্রভাব পড়েছে। মদনিকা পুরুষ বেশ ধারণ করে উদয়পুরে যাত্রা করেছেন। এই ঘটনাটি সেক্সপীয়ারের ‘As you like it’ নাটকে গ্যানিমিড নামধারী রোজালিণ্ডের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। মধুসূদন কৃষ্ণকুমারী নাটকটিতে কয়েকটি অলৌকিক ঘটনা ব্যবহার করেছেন। কৃষ্ণকুমারীর স্বপ্নদর্শন, আকাশে কমল বাদ্য ইত্যাদি ঘটনায় অলৌকিকতা আছে, সেক্সপীয়রের নাটকেও অলৌকিকতার অবতারণা ঘটেছে।

See also ‘কমলাকান্তের দপ্তর’-এর হাস্যরস

কৃষ্ণকুমারীর চরিত্র রচনায় পাশ্চাত্য নাটকের প্রভাব পড়েছে সবেচেয়ে বেশী। টডের কাহিনিতে ‘রাশিনের ইফিজেন’ নাটকের উল্লেখ ছিল। রাশিনের নাটকটির উৎস ‘ইউরিপিডিসের’ – ‘ইফিগিনিয়া ইন অলিস’ নাটক। ইউরিপিডিসের নাটকটিতে লক্ষ্য করা যায় যে দেবী আর্টেমিসের রোষে অলিস দ্বীপে এগামেনন ও তার সৈন্যবাহিনী বন্দী হয়ে পড়লে কালাকাসের দৈববাণীর দ্বারা চালিত হয়ে এগামেনন কন্যা ইফিগেনিয়াকে বলি দিতে উদ্ধত হয়েছিলেন। ইফিগেনিয়া | পিতার মুখের উপর প্রতিবাদ করেছিলেন। শেষ পর্যন্ত ইফিগেনিয়ার মৃত্যু হয়নি। দেবী আর্টেমিস তাকে রক্ষা করেছিলেন। মধুসূদনের কৃষ্ণকুমারী নাটকের কৃষ্ণকুমারী চরিত্রটির সঙ্গে ইফিগেনিয়ার মিল ভাবগত কিন্তু বস্তুগত নয়।

ঐতিহাসিক কৃষ্ণকুমারীর পরিণাম প্রসঙ্গে ভার্জিনিয়ার কথা উল্লেখ করেছিলেন। ইতিহাস থেকে ভার্জিনিয়ার কাহিনি নিয়ে ‘লেসিং’ রচনা করেছিলেন – ‘এমেলিয়া গ্যালডি’ নাটক। ভার্জিনিয়া যেমন আপপিউসের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্যে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছিলেন তেমনি এমেলিয়াও আত্মহত্যা করেন। কৃষ্ণকুমারীও আত্মহত্যাকে নারীর সম্মান রক্ষার উপায় বলে মনে করেছিলেন।

Related মাইকেল মধুসূদনের ‘কৃষ্ণকুমারী’ নাটকটি ট্র্যাজেডি নাটক হিসেবে সার্থক কিনা যুক্তিযুক্ত আলোচনা কর ?

কিছু ভার্জেনিয়া, এমেলিয়া এবং সেক্সপীয়ার ‘The Rape of Lucracy’র আত্মহত্যার সঙ্গে কৃষ্ণকুমারীর আত্মহত্যার বৃহত্তর তাৎপর্যে আত্ম বিসর্জন।

সুতরাং স্বীকার করতে হয় মধুসূদন পাশ্চাত্য নাটক থেকে কেবলমাত্র তার নাটকের Spirit টুকু গ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু কখনো নিজের মৌলিকত্য হারাননি। ‘কৃষ্ণকুমারী’ নাটকটিতে যেমন কিছু পাশ্চাত্য প্রভাব আছে তেমনি আছে কিছু প্রাচ্য প্রভাব। ডঃ সুকুমার সেন ও মধুসূদনের জীবনিকার যোগীন্দ্রনাথ বসু শূদ্রকের ‘মৃচ্ছকটিক’ নাটকটির কাহিনি ও চরিত্রের সঙ্গে ‘কৃষ্ণকুমারী’ নাটকটির বহু মিল লক্ষ্য করেছেন। ‘কৃষ্ণকুমারী’ নাটকের পাশ্চাত্য প্রভাব বহিরঙ্গ লক্ষণে সীমাবদ্ধ। মধুসূদনের মৌলিক নাট্য চিন্তা এখানে বড় হয়ে উঠেছে।

Back to top button